• ...
ঢাকা, মঙ্গলবার, ২১ নভেম্বর ২০১৭ | শেষ আপডেট ৩৯ মিনিট আগে
ই-পেপার

সীতাকুণ্ডে পুলিশের গুলিতে যুবদলকর্মী নিহত, আহত ৪

নজরুল ইসলাম, সীতাকুণ্ড (চট্টগ্রাম)
১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৫, রবিবার, ১১:০৫
চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে পুলিশের সাথে কথিত বন্দুকযুদ্ধে মোঃ আরিফ হোসেন নামে এক যুবদলকর্মী নিহত হয়েছেন। এছাড়া গুলিবিদ্ধ হয়ে পাঁচজন গুরুতর আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে চারজনের অবস্থা আশঙ্কাজন।
নিহত আরিফ হোসেন (২০) শেখেরহাট ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ড যুবদলের সহসভাপতি ছিলেন।
পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে একটি এলজি, পেট্টলবোমাসহ নাশকতার বিভিন্ন সরঞ্জাম উদ্ধার করার দাবি করেছে।
শনিবার রাত সাড়ে ১০টায় উপজেলার নুনাছড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গতকাল শনিবার সন্ধ্যার পর থেকে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে নেমে আসে অবরোধকারীরা। তারা সন্ধ্যার পর পৌরসদর উত্তর বাজারের এএসপি সার্কেল অফিসের সামনে একটি ককটেল বিষ্ফোরণ ঘটায়। এছাড়া বাইপাস সড়কসহ অন্যান্য স্থানেও বিস্ফোরণের শব্দ শোনা যায় বলে স্থানীয়রা জানান। পুলিশেরর দাবি, এভাবে রাত আনুমানিক সাড়ে ১০টায় সীতাকুণ্ড পৌরসদরের নুনাছড়া এলাকার ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে যানবাহনের উপর হামলার চেষ্টা করছিলো ১০/১২ জন দুষ্কৃতকারী। এসময় পুলিশের একটি টহল টিম সেখানে উপস্থিত হলে অবরোধকারীরা পুলিশের টহল গাড়ির উপরও হামলার চেষ্টা করে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশও তাদের উপর পাল্টা গুলি ছুঁড়লে পাঁচ অবরোধকারী গুরুতর আহত হয়। এসময় তারা গুলিবিদ্ধ হয়ে সিমক্ষেতে লুকায়। পরে পুলিশ সেখানে অভিযান চালিয়ে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় যুবদল নেতা আরিফ ও কর্মী রুবেল মিয়া, নুরুল হাদী, সোহেল, পারভেজকে গ্রেফতর করে সীতাকুণ্ড হাসপাতালে পাঠায় এবং ঘটনাস্থল থেকে একটি এলজি, ১০টি ককটেল ও দুটি পেট্টলবোমা ও কার্তুজ উদ্ধার করে।
এদিকে হাসপাতালে নিয়ে গেলেও আহতদের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাদের চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। কিন্তু সেখানে নেয়ার পথে রাত সাড়ে ১১টায় আরিফ মারা যান। তিনি সীতাকুণ্ডের সৈয়দপুর ইউনিয়নের শেখেরহাট এলাকায় জয়নালের পুত্র।
অন্যদিকে রাত আনুমানিক পৌনে ১০টায় উপজেলার মাদামবিবিরহাট চেয়ারম্যানঘাটা নামক স্থানে সোনারগাঁও পেট্টলপাম্পের সামনে দাঁড়িয়ে থাকা একটি ট্রাকে পেট্টলবোমা ছুঁড়ে আগুন ধরিয়ে দেয় দুষ্কৃতকারীরা।
নুনাছরায় পুলিশের সাথে অবরোধকারীদের সংঘর্ষের বিষয়ে জানতে চাইলে সীতাকুণ্ড থানার ওসি মোঃ ইফতেখার হাসান বলেন, রাত ৯টার দিকে পৌরসদরের নুনাছরা এলাকায় বিএনপি ও জামায়াত-শিবিরকর্মীরা একত্রিত হয়ে যানবাহনের উপর হামলার চেষ্টা করে। এসময় পুলিশের একটি টহল টিম সেখানে উপস্থিত হলে দুষ্কৃতকারীরা তাদের উপরেও চড়াও হয়। বাধ্য হয়ে পুলিশও গুলি চালায়। পরে ঘটনাস্থলে দুষ্কৃতকারীদের গ্রেফতারে অভিযান চালালে সিমক্ষেতে গুলিবিদ্ধ পাঁচজনকে দেখে তাদের আটক করা হয়। পরে আরিফ নামে একজন মারা যান।
পাঠকের মতামত
আপনার মতামত
নাম
ই-মেইল
মতামত
CAPTCHA Image

দেশ -এর অন্যান্য সংবাদ
উপরে